হাঁস-মুরগির বাসস্হানঃ
হাঁসমুরগির বাসস্হান সাধারণত নিম্নের উদ্দেশ্যগুলোকে সামনে রেখেই করা হয়ে থাকেঃ
১. আরামদায়ক পরিবেশ প্রদানের জন্য ।
২. খারাপ আবহাওয়া থেকে হাঁস-মুরগিকে রক্ষা করার জন্য।
৩. বিভিন্ন প্রকার সংক্রামক ও ছোঁয়াচে রোগের আক্রমণ থেকে রক্ষা করার জন্য।
৪. জীবজন্তুর আক্রমণ থেকে রক্ষা করার জন্য।
৫. চোরের উপদ্রব থেকে রক্ষা করার জন্য।
৬. খাবারের সুষ্ঠু ব্যবস্হাপনার জন্য।
হাঁস-মুরগির বাসস্হানের জন্য স্হান নির্বাচনঃ
১. উঁচু জমি নির্বাচন করতে হবে যেন বন্যার সময় পানিতে ডুবে না যায়।
২. বিদ্যুৎ ও পানি সরবরাহের পর্যাপ্ত সুবিধা থাকতে হবে।
৩. ভালো যোগাযোগ ব্যবস্হা থাকতে হবে।
৪. মাংস ও ডিম বাজারজাত করার সুবিধা থাকতে হবে।
৫. পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্হা থাকতে হবে।
৬. পানি নিস্কাশনের ব্যবস্হা থাকতে হবে।
৭. চারপাশ পরিস্কার পরিচ্ছন্ন হতে হবে।
৮. খোলামেলা ও নিরিবিলি পরিবেশ হতে হবে।
ঘরের প্রকৃতিঃ
হাঁস-মুরগি পালনের উদ্দেশ্যের ওপর ভিত্তি করে এদের ঘর বিভিন্ন প্রকারের হতে পারে। যেমন- হ্যাচারি ঘর, বাচ্চার ঘর, গ্রোয়ার ঘর, ডিমপাড়া ঘর, ব্রয়লার ঘর। এছাড়া ছাদের ডিজাইনের ওপর ভিত্তি করে মুরগির ঘর বিভিন্ন প্রকার হতে পারে। যেমন- একচালা বা শেড টাইপ, দোচালা বা গ্যাবল টাইপ (‘অ ’ টাইপ), কম্বিনেশন টাইপ ও মনিটর বা সেমিমনিটর টাইপ।
হাঁস-মুরগির জায়গার পরিমাণঃ
বয়স অনুযায়ী প্রতিটি হাঁস-মুরগির জন্য প্রয়োজনীয় জায়গার পরিমাণঃ
বয়স
হাঁসের জায়গার পরিমাণ (বর্গফুট)
ডিমপাড়া মাংস উৎপাদন
মুরগির জায়গার পরিমাণ (বর্গফুট)
লিটার পদ্ধতি মাঁচা পদ্ধতি
১ দিন-৪ সপ্তাহ ০.৫০ ০.৫০ - ০.৭৫ ০.৫০ ০.২৫
৪ সপ্তাহ-৮ সপ্তাহ ০.৭৫ - ১.০ ১.০ - ১.৫ ০.৭৫ ০.৩২
৮ সপ্তাহ-১২ সপ্তাহ ১.০ - ১.৫ ১.৫ - ২.০ ১.০০ ০.৫৪
১২ সপ্তাহ-এর ওপর ২.০ - ৩.০ ৩.০ - ৪.০ ১.৫০ - ২.০ ১.০ - ১.২৫
ঘরের পরিচর্যা ও জীবাণুমুক্ত করণ পদ্ধতিঃ
ঘরের লিটার পরিস্কার হতে হবে এবং জীবাণুনাশক, যেমন- চুন দিয়ে তা জীবাণুমুক্ত করতে হবে। ঘরের দেয়াল-মেঝে ভালমত পানি দিয়ে পরিস্কার করতে হবে। তবে কস্টিক সোডা দিয়ে পরিষ্কার করলে ভালো হয় । ফিউমিগেশন শুরু করার পূর্বে দরজা, জানালা, ভেন্টিলেটর প্রভৃতি বন্ধ করতে হবে যাতে ঘরে কোনো বাতাস না ঢুকে। ঘরের প্রতি ২.৮ ঘন মিটার জায়গার জন্য ৬ গ্রাম পটাসিয়াম পার-ম্যাঙ্গানেট ও ১২০ মি.লি. ফরমালিন (৪০%) দিয়ে ফিউমিগেট করতে হবে।
বাচ্চা পালন
বাচ্চা রাখার ঘর বা শেড অবশ্যই উঁচু জায়গায় (সমতল ভূমি হতে ১-১.৫ ফুট উচুঁ) নির্মাণ করতে হবে যেন ঘরের ভিটি কোন অবস্হায় ভিজা বা স্যাঁতস্যাঁতে না হয়। ঘরের মেঝে পাকা হলে ভাল হয়। ২-৩ ইঞ্চি পুরু করে ধানের শুকনো তুষ বা শুকনো কাঠের গুঁড়া মেঝের উপর বিছিয়ে দিতে হবে। মেঝে নিচ থেকে ভিজে উঠতে পারে সেজন্য প্রতি সপ্তাহে কমপক্ষে ২/৩ বার লিটার উল্টিয়ে চুন মিশাতে হবে। এতে লিটার শুকনো থাকবে, জীবাণু ধংস হবে এবং দুর্গন্ধ দুর হবে। লক্ষ্য রাখতে হবে যেন কোনো অবস্হাতেই বৃষ্টির পানি ঘরের মেঝের উপর না পরে। কখনও লিটার ভিজে গেলে উহা ফেলে দিতে হবে এবং ড্রিংকার হতে খাবার পানি ঘরের মেঝের উপর না পরে। কখনও লিটার ভিজে গেলে উহা ফেলে দিতে হবে এবং সাথে সাথে শুকনো লিটার দিতে হবে। বাচ্চা সংগ্রহের পর এদেরকে প্রথমে ভিটামিন মিশ্রিত পানি খেতে দিতে হবে। তারপর শুকনো খাবার সামান্য পানিতে ভিজিয়ে খাওয়াতে হবে। প্রতিদিন কমপক্ষে ৩/৪ বার বাচ্চাকে খাবার দিতে হবে এবং প্রতি বাচ্চাকে ৫-১০ গ্রাম করে সুষম খাবার খাওয়াতে হবে। লক্ষ্য রাখতে হবে ছোট বাচ্চার বেলায় খাবার দেবার সময় অবশ্যই পানির পাত্রে আগে পানি দিয়ে রাখতে হবে অর্থাৎ প্রথমে পানি দিয়ে পরে খাবার দিতে হবে নতুবা শুকনো খাবার বাচ্চার গলায় আটকে বাচ্চা মারা যেতে পারে। এক দিন বয়সের বাচ্চার জন্য ব্রুডিং-এর প্রয়োজন রয়েছে। প্রথম সপ্তাহে ঘরের তাপমাত্রা থাকবে ৯৫ ডিগ্রী ফারেনহাইট, পরবর্তিতে প্রতি সপ্তাহে ৫ ডিগ্রী ফারেনহাইট তাপমাত্রা করে কমাতে হবে। সাধারণতঃ গ্রীস্মকালে ৩ থেকে ৪ সপ্তাহ এবং শীতকালে ৬ থেকে ৮ সপ্তাহ পর্যন- বাচ্চাকে তাপ দিতে হবে। তবে অতি খরা অথবা অতি শীতে এর কিছুটা তারতম্য হতে পারে। বাংলাদেশের গ্রামের অনেক এলাকায় এখনও বিদ্যুৎ নেই, থাকলেও পর্যাপ্ত নহে, সে সব এলাকার ক্ষুদ্র খামারী হ্যারিকেন, হ্যাজাকলাইট, কেরোসিন অথবা মাটির চুলা ব্যবহার করে হাঁস-মুরগির বাচ্চাগুলোকে তাপ প্রদানের ব্যবস্হা করতে পারেন।
হাঁস-মুরগির স্বাস্হ্য ব্যবস্হাপনাঃ
সুস্হ-সবল রোগমুক্ত হাঁস-মুরগি অথবা হাঁস-মুরগির বাচ্চা সংগ্রহ করতে হবে। হাঁস-মুগির সমস- সেড, ঘরের মেঝে, দেয়াল, বেড়া, ছাদ, ডিমের বাক্স, ডিমের ট্রে, পানির পাত্র এবং খাবার পাত্র ইত্যাদি নিয়মিত পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে। মাঝে মাঝে জীবাণুনাশক ঔষধ ছিটিয়ে দিতে হবে। জীবাণুনাশক ঔষুধ মিশ্রিত পানি খামারের মূল প্রবেশ পথে এবং হাঁসের ঘরের দরজায় ফুটপাথে রাখতে হবে। খামারে বা হাঁস-মুরগির ঘরে প্রবেশের পূর্বে ফুটপাথে পা ভিজিয়ে নিতে হবে। খামারে দর্শণার্থীদের অবাধ প্রবেশ বন্ধ করা এবং পুরাতন খাঁচাসহ প্রবেশ করতে না দেয়া। অপ্রয়োজনীয় যানবাহন খামারে প্রবেশ করতে দেয়া যাবে না। হাঁস-মুরগির বাচ্চাকে পরিষ্কার ও পরিচ্ছন্ন পরিবেশে পালন করতে হবে। বন্যপাখি যাতে মুরগি পালন এলাকায় না আসতে পারে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। খাদ্য ও পানির পাত্র নিয়মিত জীবাণুনাশক দিয়ে পরিস্কার করতে হবে এবং রোদে শুকিয়ে ব্যবহার করলে ভাল হয়। ঘরের লিটার পরিষ্কার হতে হবে এবং মাঝে মাঝে জীবাণুনাশক, যেমন- চুন দিয়ে জীবাণুমুক্ত করতে হবে। ঘরের দেয়াল, মেঝে ও সরঞ্জামাদি পানি দিয়ে পরিষ্কার করতে হবে এবং ঘর ভালভাবে ফিউমিগেট করতে হবে।
হাঁস-মুরগির খাদ্য ও পুষ্টি ব্যবস্হাপনাঃ
হাঁসের খাদ্যঃ
পারিবারিকভাবে পালিত দেশী হাঁস জলাশয়ে এবং ক্ষেতখামারে চরে জীবন ধারন করতে পারে। কিন্তু উন্নত জাতের হাঁস পালনের ক্ষেত্রে বিশেষ যত্নবান হতে হবে। পর্যাপ্ত পরিমাণে প্রাকৃতিক খাবার যেমন - শামুক, ঝিনুক, কাঁকড়া, কেঁচো, শাপলা, ক্ষুদেপানা ছোট মাছ ও নানা ধরনের কীটপতঙ্গ মুক্ত অবস্হায় জলাশয়ে পাওয়া গেলে শুধু সকাল ও বিকালে পরিমিত পরিমান দানাদার খাবার সরবরাহ করলেই চলবে। হাঁসের খাবারের সাথে প্রচুর পরিমাণ পানি সরবরাহ করতে হয়। হাঁসকে শুস্ক খাদ্য দেয়া ঠিক নয়। এদের সবসময় ভেজা ও গুঁড়ো খাদ্য দেয়া উচিত। প্রথমে ৮ সপ্তাহ হাঁসকে ইচ্ছামত খেতে দেয়া উচিত পরবর্তীতে দিনে দু’বার খেতে দিলেই চলে ।
সুষম খাদ্য তৈরিঃ
সুষম খাদ্য তৈরির পূর্বে প্রতিটি হাঁস পালনকারীকে খোয়াল রাখতে হবে যেন সুষম খাদ্যের প্রতিটি উপাদানই সহজলভ্য, সস্তা, টাটকা এবং পুষ্টিমান সঠিকভাবে বিদ্যমান আছে। কোনো অবস্হাতেই বাসি পঁচা বা নিম্নমানের ফাংগাসযুক্ত খাবার হাঁসকে দেয়া যাবে না। খাদ্যের প্রকৃতি, মিশ্রণ পদ্ধতি, হাঁসের জাত, ওজন, ডিম উৎপাদনের হার এবং সর্বোপরি শামুক, ঝিনুক, ধান, সবুজ শেওলা বা শৈবাল এবং শাকসবজীর প্রাপ্যতা অনুসারে খাদ্য খাওয়ানোর কর্মসূচি তৈরি করতে হবে।
খাবার পাত্র ও পানির পাত্রঃ
বয়স অনুযায়ী হাঁসের জন্য খাবার পাত্র ও পানির পাত্রের পরিমাণ-
বয়স (মাস) জায়গার পরিমাণ (লিনিয়ার ইঞ্চি)
খাবার পাত্র পানির পাত্র
১ দিন - ৩ সপ্তাহ ২.০ ২.৫
৪ সপ্তাহ - ৮ সপ্তাহ ৩.০ ৩.০ - ৪.০
৮ সপ্তাহ - ১৬ সপ্তাহ ৪.০ ৪.০- ৫.০
মুরগির খাদ্য ব্যবস্হাপনাঃ
খামার স্হাপনের আগে অবশ্যই মুরগির খাদ্য ব্যবস্হাপনা সম্পর্কে সম্যক জ্ঞান লাভ করতে হবে। মুরগির খামারে সাধারণত লেয়ার, ব্রিডার ও ব্রয়লার মুরগি পালন করতে দেখা যায়। নিম্নে এদের খাদ্য তালিকায় কি পরিমাণ প্রয়োজনীয় শক্তি বা পুষ্টিউপাদান থাকা দরকার তা উল্লেখ করা হলোঃ
শক্তি/পুষ্টি উপাদান লেয়ার / ব্রিডার মুরগি ব্রয়লার মুরগি
প্রারম্ভিক রেশন (০ - ৮ সপ্তাহ) বৃদ্ধি রেশন (৯ - ১৮ সপ্তাহ) লেয়ার / ব্রিডার (১৯ -৭২ সপ্তাহ) প্রারম্ভিক (০ - ৪ সপ্তাহ) সমাপ্তি (৫ - ৮ সপ্তাহ)
বিপাকীয় শক্তি (কিলোক্যালরি/কেজি খাদ্য) ২৬৭৫ ২৪১০ ২৮৩০ ৩০৫০ ৩২০০
আমিষ (%) ২০ ১৬ ১৫ ২১ - ২২ ১৯ - ২০
ক্যালসিয়াম (%) ১.০ ১.০ ৩.০ ১.১ ০.৯
ফসফরাস (%) ০.৭ ০.৬ ০.৬ ০.৭ ০.৬
বিভিন্ন খাদ্যদ্রব্য প্রয়োজনীয় মাত্রায় একত্রে মিশিয়ে মুরগির খাদ্যতালিকা বা রেশন তৈরি করা হয়। বিভিন্ন বয়সের লেয়ার বা ডিমপাড়া মুরগির খাদ্যতালিকাঃ
উৎপাদন (%) লেয়ার / ব্রিডার মুরগি ব্রয়লার মুরগি
প্রারম্ভিক রেশন (০ - ৮ সপ্তাহ) বৃদ্ধি রেশন (৯ - ১৮ সপ্তাহ) লেয়ার রেশন (১৯ -৭২ সপ্তাহ) লেয়ার/ব্রিডার মুরগি ব্রয়লার মুরগি
গম/ভুট্টা ভাঙ্গা ৫০.০ ৫০.০ ৫৪.০ ৪৭.৫০ ৪৯.০০
গমের ভুষি ১০.০ ৭.০ ৫.০ - -
চালের মিহিকুঁড়া ১০.০ ১০.০ ১৫.০ ১৭.৫০ ১৮.০০
তিলের খৈল ১২.০ ১০.০ ৭.০ ১৩.০০ ১২.০০
সয়াবিন তেল - - - ২.০০ ৩.০০
শুঁটকি মাছের গুঁড়ো ১৪.০ ১২.০ ১০.০ ১৮.০০ ১৪.৭৫
হাড়ের গুঁড়ো ১.৫ ৩.০ ২.৫ ১.২৫ ১.০০
ঝিনুক চূর্ণ ১.৭৫ ২.২৫ ৫.৭৫ ০.২৫ ১.৫০
লবণ ০.৫ ০.৫ ০.৫ ০.২৫ ০.৫০
ভিটামিন-খণিজ মিশ্রণ ০.২৫ ০.২৫ ০.২৫ ০.২৫ ০.২৫
সর্বমোট ১০০.০ ১০০.০ ১০০.০ ১০০.০ ১০০.০
মুরগিকে খাদ্য খাওয়ানোর পদ্ধতিঃ
স্বাধীনভাবে বিভিন্ন খাবার খাওয়ানো পদ্ধতিঃ
এ পদ্ধতিতে বিভিন্ন খাবারের পাত্রে ভিন্ন ভিন্ন খাবার রাখা হয় এবং মুরগি তার পছন্দমতো খাবার খেয়ে থাকে ।
দানা ও গুঁড়ো মিশিয়ে খাওয়ানোর পদ্ধতিঃ
এ পদ্ধতিতে একইসাথে দানা ও গুঁড়ো খাবার খাওয়ানো হয়। বাড়ন- বাচ্চা ও ডিমপাড়া মুরগিকে খাদ্য খাওয়ানোর জন্য এ পদ্ধতিটি খুবই উপযোগী।
চূর্ণ খাদ্য খাওয়ানোর পদ্ধতিঃ
এ পদ্ধতিতে সবধরনের খাদ্যদ্রব্য চূর্ণ করে একসাথে মিশিয়ে খাওয়ানো হয়। বাচ্চা ও বাড়ন- বাচ্চাকে এ পদ্ধতিতে খাওয়ালে ভালো ফল পাওয়া যায়।
খামার ব্যবস্হাপনা ও দৈনিক কার্যক্রম সূচিঃ
যে কোনো ধরনের খামারই হোক না কেনো তার ব্যবস্হাপনা একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়, প্রকৃতপক্ষে খামার ব্যবস্হাপনার উপরই খামারের লাভ লোকসান এমনকি খামারের ভবিষ্যত সসপ্রসারণ নির্ভর করে ।
ক) সকাল ৭ - ৯ টাঃ
১. জীবাণুমুক্ত অবস্হায় শেডে প্রবেশ করতে হবে এবং হাঁস-মুরগির সার্বিক অবস্হা ও আচরণ পরীক্ষা করতে হবে।
২. মৃত বাচ্চা/বাড়ন- বাচ্চা/মুরগি থাকলে তৎক্ষণাৎ অপসারণ করতে হবে।
৩. ডিম পাড়া বাসার দরজা খুলে দিতে হবে।
৪. পানির পাত্র/ খাবার পাত্র পরিস্কার করতে হবে।
৫. পাত্রে খাবার ও পানি না থাকলে তা পরিস্কার করে খাদ্য ও পানি সরবরাহ করতে হবে।
৬. লিটারের অবস্হা পরীক্ষা করতে হবে ও প্রয়োজন হলে পরিচর্যা করতে হবে।
৭. খাবার দেবার পর কিছুক্ষণ দাঁড়িয়ে আচরণ পরীক্ষা করতে হবে।
সকাল ১১- ১২ টাঃ
১. খাদ্য নাড়াচাড়া করে দিতে হবে।
২. পানি গরম ও ময়লা হলে পরিবর্তন করে পরিস্কার ও ঠান্ডা পানি দিতে হবে।
৩. ডিম সংগ্রহ করতে হবে।
বিকাল ৪ - ৫ টাঃ
১. পাত্রে খাদ্য পানি না থাকলে তা সরবরাহ করতে হবে।
২. ডিম সংগ্রহ করতে হবে।
৩. ডিম পাড়ার বাসা/বাক্সের দরজা বন্ধ করতে হবে।
৪. আচরণ পরীক্ষা করতে হবে।
সাপ্তাহিক কাজঃ
১. খাদ্য তৈরি করতে হবে।
২. বাচ্চা/ডেকী মুরগী/মুরগীর নমুনা ওজন গ্রহণ করতে হবে।
৩. ঘর পরিস্কার করতে হবে।
৪. ঘরের বাতি সপ্তাহে ২ দিন পরিস্কার করতে হবে। খাদ্য ও পানির পাত্র পরিস্কার করতে হবে এবং লিটার পরিচর্যা করতে হবে।
৫০০ টি মুরগীর খামারের বিভিন্ন খরচ, আয় ও নীট মুনাফার হিসাবঃ
মোট স্হায়ী খরচঃ
ক. জমি নিজস্ব
১. মুরগির ঘর লিটার পদ্ধতিতে, ৭৫০ বর্গফুট @ ২০০.০০ = ১,৫০,০০০.০০
২. ম্যানেজার বা মালিকের অফিস ঘর, ১০০ বর্গফুট @ ২০০.০০ = ২০,০০০.০০
৩. ডিম সংরক্ষণাগার, ১০০ বর্গফুট @ ২০০.০০ = ২০,০০০.০০
৪. গুদাম ঘর, ২০০ বর্গফুট @ ২০০.০০ = ৪০,০০০.০০
৫. অসুস্হ ও মৃত মুরগির ঘর, ১০০ বর্গফুট @ ২০০.০০ = ২০,০০০.০০
৬. বিষ্ঠা সংরক্ষণাগার, = ১০,০০০.০০
৭. মৃত মুরগি সৎকারের জায়গা = ১,০০০.০০
৮. আসবাবপত্র ও যন্ত্রপাতি = ২০,০০০.০০
মোট স্হায়ী খরচ = ২,৮১,০০০.০০ টাকা
আবর্তক বা চলতি খরচঃ
১. প্রতিটি ৭৫.০০ টাকা হিসেবে ৫০০ টি পুলেটের মূল্য = ৩৭,৫০০.০০
২. বার্ষিক মোট খাদ্য খরচ ২০ মেট্রিক টন ক্ম ১৫০০০.০০ (প্রতিদিন প্রতি মুরগির জন্য ১১০ গ্রাম এবং প্রতি মেট্রিক টন খাদ্য ১৫০০০ টাকা হিসেবে) = ৩,০০,০০০.০০
৩. লিটার খরচ (বছরে প্রতি কক্ষে ৮ বস্তা এবং প্রতি বস্তা ২৫.০০ টাকা হিসেবে) = ২,০০০.০০
৪. ঔষুধপত্র ও টিকাবাবদ খরচ (মুরগি প্রতি ২.০০ হিসেবে) = ১,০০০.০০
৫. জনশক্তি বাবদ খরচ = ৩৬,০০০.০০
মোট = ৩,৭৬,৫০০.০০ টাকা
বার্ষিক মোট প্রতিপালন ব্যয়ঃ
১. মোট আবর্তক খরচ = ৩,৭৬,৫০০.০০
২. মোট মূলধনের উপর সুদ (বছরে ১০% হারে) ২৮,১০০.০০
৩. অপচয় খরচ -ঘরবাড়ির জন্য বছরে ২% হারে = ৫,২২০.০০
৪.আসবাবপত্র ও যন্ত্রপাতি (১০% হারে) = ২,০০০.০০
মোট খরচ= ৪,১১,৮২০.০০ টাকা
বার্ষিক আয়ঃ
১. গড়ে ৭০% হারে ডিম উৎপাদন ধরে মোট ডিম উৎপাদন ১,২৭,৭৫০ টি ডিম ভালো ডিম বিক্রিবাবদ আয় (প্রতিটি ৩.৫০ টাকা হিসেবে) = ৪,৪৭,১২৫.০০
২. প্রতি মেট্রিক টন ৫০০ টাকা হিসেবে বছরে ২০ মে. টন বিষ্ঠা বিক্রি বাবদ আয় = ১০,০০০.০০
৩. প্রতিটি ১০০ টাকা হিসেবে ৪৭৫ টি বাতিল মুরগি বিক্রিবাবদ আয় (৫% মৃত্যু) = ৪৭,৫০০.০০
৪. খালি বস্তা বিক্রিবাবদ আয় = ৫,০০০.০০
মোট আয় = ৫,০৯,৬২৫.০০ টাকা
বছরে লাভক্ষতি হিসাবঃ
মোট আয় = ৫,০৯,৬২৫.০০
মোট ব্যয় = ৪,১১,৮২০.০০
মোট লাভ = ৯৭,৮০৫.০০ টাকা
৫০০ টি ব্রয়লার খামারের বিভিন্ন খরচ, আয় ও নীট মুনাফার হিসাবঃ
মোট স্হায়ী খরচঃ
ক. জমি নিজস্ব
১. মুরগির ঘর, ৫০০ বর্গফুট @ ২০০.০০ = ১,০০,০০০.০০
২. ম্যানেজার বা মালিকের অফিস ঘর, ১২০ বর্গফুট @ ২০০.০০ = ২৪,০০০.০০
৩. গুদাম ঘর, ২০০ বর্গফুট @ ২০০.০০ = ৪০,০০০.০০
৪. অসুস্হ ও মৃত মুরগির ঘর, ১০০ বর্গফুট @ ২০০.০০ = ২০,০০০.০০
৫. বিষ্ঠা সংরক্ষণাগার = ১০,০০০.০০
৬. মৃত মুরগি সৎকারের জায়গা = ১,৫০০.০০
৭. যন্ত্রপাতি = ২৫,০০০.০০
৮. আসবাবপত্র = ১৫,০০০.০০
মোট ২,৩৫,৫০০.০০ টাকা
আবর্তক বা চলতি খরচঃ
১. প্রতিটি বাচ্চা ৩২.০০ টাকা হিসেবে ৬ টি ব্যাচে ৩০৬০ টি বাচ্চার মূল্য (২% মূত্যু ) = ৯৭,৯২০.০০
২. বার্ষিক মোট খাদ্য খরচ ৩০০০ টি বাচ্চা ৪ কেজি হিসাবে ১২,০০০ কেজি, @ ১৭.০০ = ২,০৪,০০০.০০
৩. লিটার খরচ (বছরে প্রতি কক্ষে ৮ বস্তা এবং প্রতি বস্তা ২৫.০০ টাকা হিসেবে) = ১,৬০০.০০
৪. ঔষুধপত্র ও টিকাবাবদ খরচ (মুরগি প্রতি ২.০০ হিসেবে) = ৬,০০০.০০
৫. জনশক্তি বাবদ খরচ = ৩৬,০০০.০০
৬. বছরে খাওয়ার খরচ = ৫,০০০.০০
মোট = ৩,৫০,৫২০.০০ টাকা
বার্ষিক মোট প্রতিপালন ব্যয়ঃ
১. মোট আবর্তক খরচ = ৩,৫০,৫২০.০০
২. মোট মূলধনের উপর সুদ (বছরে ১০% হারে) ২৩,৫৫০.০০
৩. অপচয় খরচ -ঘরবাড়ির জন্য বছরে ২% হারে = ৩,৯১০.০০
৪.আসবাবপত্র ও যন্ত্রপাতি (১০% হারে) = ৪,০০০.০০
মোট খরচ= ৩,৮১,৯৮০.০০ টাকা
বার্ষিক আয়ঃ
১. ৩,০০০ টি জীবন- ব্রয়লার প্রতিটি ২.০ কেজি হিসাবে @ ৭৫.০০ = ৪,৫০,০০০.০০
২. প্রতি মেট্রিক টন ৫০০ টাকা হিসেবে বছরে ২০ মেট্রিক টন বিষ্ঠা বিক্রি বাবদ আয় = ১০,০০০.০০
৩. খালি বস্তা বিক্রিবাবদ আয় = ৫,০০০.০০
মোট আয় = ৪,৬৫,০০০.০০ টাকা
বছরে লাভক্ষতি হিসাবঃ
মোট আয় = ৪,৬৫,০০০.০০
মোট ব্যয় = ৩,৮১,৯৮০.০০
মোট লাভ = ৮৩,০২০.০০ টাকা